KIFF: Amitabh Bachchan Appreciates Bengalis, Opens Kolkata International Film Festival with Jaya Bachchan and Vidya Balan

English: Amitabh Bachchan photographed by Stud...

English: Amitabh Bachchan photographed by Studio Harcourt Paris Français : Amitabh Bachchan photographié par Studio Harcourt Paris Harcourt Paris (Photo credit: Wikipedia)

By Meera Bera
(This report on Amitabh Bachchan's astute but appreciative speech at the inauguration of the Kolkata International Film Festival (KIFF) is in unicode Bangla font. AB Sr. opened the KIFF along with Jaya Bachchan and Vidya Balan.)

২১তম কলকাতা চলচিত্র উৎসবের উদ্বোধন করতে এসে শ্রী অমিতাভ বচ্চন বাঙালির কি প্রশংসাই না করে গেলেন।

তিনি বললেন, আমবাঙালি যে কোন বিষয়ে শুধু মতামত-ই দেন না, এত বিশ্বাসযোগ্যভাবে নিজেদের বক্তব্য পেশ করেন যে তাতে জ্ঞানী মানুষজন-ও ভিমরি খান।

আর যায় কোথায়! বুদ্ধির “প্ত্রশংসা”? দে হাততালি।

শ্রী বচ্চন আরো ব্যাখ্যা দিলেনঃ.

১) মনে করুন, এক বাঙালি একটু দূর থেকে আরেক বাঙালিকে জিগ্যেস করলেন – দাদা, কেমন আছেন? উত্তরে দ্বিতীয় বাঙালি নিশ্চিত বলবেন – ওই, চলে যাচ্ছে (ভা্লো বললে নাকি প্রথম বাঙালি সিগ্রেট চেয়ে বসবেন)।

২) মনে করুন আরেক বাঙালি নিজের মনে সিগারেট খেতে খেতে হাঁটছেন। এমন সময় যদি তিনি দেখতে পান অন্য এক বাঙালি সেদিকে আসছেন তো তিনি সিগারেটটি সাময়িকভাবে ছুঁড়ে ফেলে দেবেন (পাছে আগন্তুক চেয়ে বসেন)। আগত দ্বিতীয়জন চলে গেলে প্রথমজন ফেলে দেওয়া সিগারেটটা আবার তুলে নিয়ে টানতে শুরু করবেন।

বাঙালির এত প্রশংসা শুনে বাঙালি আরো হাততালি না দিয়ে পারে!!

আরেকটু প্রশংসা বাকীঃ

শ্রী বচ্চন নেতাজি ইন্ডোরে প্রকাশ্যে “দিদি”-কে অনুরোধ জ্ঞাপন করলেন যে “দিদি” যেন আর তাঁকে এই কলকাতা চলচিত্র উৎসবে উদ্বোধন করতে না ডাকেন। কেন না, শ্রী বচ্চনের নতুন কিছু আর বলার নেই। তাঁর রিসার্চ টিম নাকি আর নতুন কিছু বলার মত যোগাড় করতে পারছেন না। এবং “দিদি” যেন জানতে না চান, শ্রী বচ্চন কেমন আছেন? তাহলে যদি তিনি বলেন “ভালো আছি” তাহলে “দিদি” আবার ডাকবেন। তার থেকে তিনি “বুদ্ধিমান” বাঙালির মত ঐ কোনরকমে আছি বলতে চান।

-এই শুনে আবার হাততালি (আহা শ্রী বচ্চন, বাঙালির বুদ্ধির প্রশংসাই শুধু করলেন না, নিজে সেই বুদ্ধি প্রয়োগ করবেন বলে প্রকাশ্যে জানালেন। কি গর্ব!!)

সব শুনে “দিদি” পরম মমতায় বললেন, “আবার আসতে হবে।”

এবার আর হাততালি থামতেই চায় না।