Bengali poem by Neela Das Nath

DSCN0697.JPG


নীলা দাস নাথ শিলিগুড়ি নিবাসী।পেশায়  ইংরেজীর শিক্ষিকা।সাহিত্যের সঙ্গে নিবিড় যোগাযোগ তাঁর।প্রথম লেখা গল্প ২০০০ সালে দৈনিক বসুমতি তে প্রকাশিত হয়।২০০৩ সালে “বৃষ্টি  ও রূপপকথা “ নামের কবিতা সঙ্কলন প্রকাশিত হয়।সঙ্গে সঙ্গে নানা বিশিষ্ট পত্র পত্রিকায় ছড়া,গল্প কবিতা প্রকাশিত হতে থাকে। আসুন পরিচিত হই নীলা দেবীর লেখা কবিতার সাথে...


এমন এক বসন্তের দিনে-

এমনি এক বসন্তের দিনে,
পলাশ,কৃষ্ণ চূড়ায়  রঙের আগুন।
তোমার চোখেও তখন স্ফুলিঙ্গ;
আমার উঠোন ভরা উজ্জ্বল রোদ্দুর।
তারপর আর উজ্জ্বলতর দিনের খোঁজে,
আমরা বাসা বেঁধে কপোত কপোতী......
বেলা পড়ে এলেও গাইবো বসন্তের গান;
দুই হৃদয়েই নিরন্তর হোলির উৎসব।

তারপর

বেশ তুমি যেও বনান্তরে।
বনস্থলে বসন্তের দাগ।
ছিন্নপাতায় রুক্ষ বেশে
বৈরাগী এ মন
হাঁটে উদাস প্রান্তরে;
আমি ভাল নেই বলে
পলাশে শিমুলে
নেই রঙের উচ্ছ্বাস।
সব রঙ শুষে নিলে
কালো  হয় দিগন্ত আমার।
তবু তুমি ভাল থেকো
সাত রঙ্গে ভরা থাক
সারাক্ষণ তোমার অন্তর।
আজ এই  রঙের উৎসবে
ফিরে এস এই আমন্ত্রনে
পাঠিয়েছি বাতাসে খবর।
রঙের মোড়কে মুছে
দুঃখ আর হতাশার ঝুল
ক্যানভাসে এঁকে নাও
ভালবাসা দিয়ে সেই ছবি
ভুলে গিয়ে অবাঞ্ছিত ভুল।
তারপর...............।

অনুভব

তুমি তো আগুন জ্বেলে বসে আছো,
মধ্যাহ্নের প্রখর দাবদাহে;
জীবন যাপনে দেখো আমরই উত্তাপ!
কি যেন পাওয়ার কথা ছিল,
অপ্রাপ্য সেই বেদনার বিষ রোদে
বেড়ে দিন,মাস কাল এযাবৎ,
সব কিছু এলোমেলো করে গেছে।
সব কিছু এলোমেলো করে গেছে।
বিবশ মনের সঙ্গে অকারণ,
চলে বিষণ্ণ কথোপকথন।
তবু,দেখো শীর্ণস্রোতা অনুভব বয়ে যায়,
প্রেমদগ্ধ হৃদয়-পিঞ্জরে।
ফের যদি প্রথম দিনের মতো
সূর্যোদয় দেখা যায়,এই ভেবে
বসে থাকি তাই সেই
অনুভব নদীটির তীরে।

যদি কোনদিন

তোমার শব্দময় আলোকিত উপস্থিতি,
ভেঙ্গে যায় আমার সময়ের অসহায় দরজায়।
অথচ মেঘ ঠেলে তুমি আসো,
রোদ্দুর হয়ে ধরনা দাও,
আকাঙ্খা হয়ে ইচ্ছের সাগরে ভাসো!
আবার কখনো বৃষ্টি হয়ে ঝরো
আমার আধখোলা জানালার সামনে।
চাঁদ হয়েও আমার কাছে  জ্যোৎস্না
নিয়ে এসেছ তুমি!
কিন্তু চালধোয়া আর রান্নাববান্নার অছিিলায়,
তোমাকে আমি ফিরিয়ে দিয়েছি।
আমার কাব্যবীণায় তাই সুর ওঠেনি।
বাঙ্ময় চলমান শব্দরেখা
আমার অকাব্যিক দিগন্তে এসে
হারিয়ে গিয়েছে বার বার।
আজ হঠাৎ  পাওয়া অলস মূহুর্তে
কুড়িয়ে নিতে চেষ্টা করছি
আমার টুকরো হয়ে যাওয়া
অমূল্য কাব্যতরী;
যদি পারি,কোনদিন তা বাইতে!